দুয়ারে সরকার (Duare Sarkar Camp)

১ লা সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে দুয়ারে সরকার (Duare Sarkar Camp). এক নজরে দেখে নিন কোন কোন নতুন পরিষেবা মিলবে শিবিরে আর কবে হবে আপনার এলাকায়।
পশ্চিমবঙ্গের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় আবারও ‘দুয়ারে সরকারের’ ক্যাম্প আয়োজিত হতে চলেছে আগামী মাস থেকেই। এইবার দুয়ারে সরকার প্রকল্পের ক্যাম্পে মিলবে কি কি সুবিধা, প্রত্যেকটি জেলার প্রতিটি অঞ্চলের ক্যাম্পিংয়ের নির্দিষ্ট তারিখই বা কবে এইসব বিষয় সম্পর্কে বিশদে জানতে শেষ পর্যন্ত সঙ্গে থাকুন।

Advertisement

Duare Sarkar Camp – দুয়ারে সরকার ক্যাম্প

মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২০১১ সালে প্রথমবার ক্ষমতায় আসার পর থেকে তার রাজ্যের মানুষদের কল্যাণের কথা চিন্তা করে এখনো পর্যন্ত তিনি ৭১ টিরও বেশি জনকল্যাণকর প্রকল্প চালু করেছেন। যার মধ্যে বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি হল স্বাস্থ্য সাথী, সবুজ সাথী, লক্ষীর ভান্ডার, গতিধারা, আনন্দধারা, কর্মই ধর্ম, কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, যুবশ্রী, ঐক্য শ্রী ইত্যাদি।

এই সমস্ত প্রকল্পগুলির মাধ্যমে এখনো পর্যন্ত উপকার পেয়ে এসেছেন রাজ্যের কোটি কোটি মানুষ। তবে আবার অনেক মানুষই এখনো পর্যন্ত এই সমস্ত সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন। আর ঠিক এই কারণেই ২০২১ সালে তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় আসার আগেই মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন যে যাতে সকল মানুষ তার চালু করা যে কোনো রকম প্রকল্পের সুবিধা বিনা বাঁধায় উপভোগ করতে পারেন সেই জন্য তিনি নতুন এক কর্মসূচি গ্রহণ করতে চলেছেন এবং তারই নাম হল দুয়ারে সরকার।

Ads

এখনো পর্যন্ত অনেকবারই এই দুয়ারে সরকার শিবির অনুষ্ঠিত হয়েছে। এইমাত্র কিছুদিন আগেই এপ্রিল মাসেও একবার এটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল। দুয়ারে সরকার (Duare Sarkar Camp) এর পরবর্তী ক্যাম্প আবার অনুষ্ঠিত হতে চলেছে আগামী সেপ্টেম্বর মাসের ১ তারিখ থেকে ১৬ তারিখ পর্যন্ত।

Advertisement

দুয়ারে সরকার এর কয়েকটি জনপ্রিয় প্রকল্প

  • লক্ষ্মীর ভান্ডার – মা বোনেদের আর্থিক সাহায্য।
  • স্বাস্থ্যসাথী – বিনামূল্যে চিকিৎসা।
  • জাতি সনদপত্র – কাস্ট সার্টিফিকেট।
  • ঐক্যশ্রী – মাইনরিটি স্কলারশিপ।
  • কৃষকবন্ধু – কৃষকদের সাহায্য।
  • জয় জোহার – আদিবাসী ও উপজাতিদের।
  • খাদ্যসাথী – রেশনকার্ড সংক্রান্ত।
  • বার্ধক্য ভাতা – এবারের নতুন।
  • পরিযায়ী শ্রমিকদের নাম নথিভুক্তকরন।

কি কি সুবিধা পাওয়া যাবে?

সাধারণত দুয়ারে সরকার ক্যাম্প গুলিতে মুখ্যমন্ত্রী চালু করা সমস্ত রকম প্রকল্পেরই সুবিধা দেওয়া হয়ে থাকে এবং তাও আবার তৎক্ষণাতই। তবে এইবার এই সমস্ত সুবিধার তালিকায় আরো দুটি নতুন সুবিধা যুক্ত হতে চলেছে। একটি হলো বার্ধক্য ভাতা এবং অন্যটি হলো পরিযায়ী শ্রমিকদের নাম নথিভুক্ত করণ। রাজ্যের যে সকল বেকার জনগণ ৬০ বছর বয়সীমা অতিক্রম করেছেন তারা সকলেই নিজেদের বাড়ির কাছের দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে গিয়ে এই বার্ধক্য ভাতা লাভের জন্য আবেদন জানাতে পারবেন।

Advertisement
খাদ্য সাথী আমার রেশন (Khadya Sathi Amar Ration)

তাদের সকলকে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিমাসে ১০০০ টাকা করে ভাতা প্রদান করা হবে। এছাড়াও এবারের দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে সমস্ত পরিযায়ী শ্রমিকদের নাম নথিভুক্ত করণ প্রক্রিয়াও শুরু করা হবে। আমাদের রাজ্য থেকে যারা কাজের প্রয়োজনে বাইরের রাজ্যে যান তারা কোন সমস্যার সম্মুখীন হলে যাতে রাজ্য সরকারের তরফে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করা যেতে পারে তা সুনিশ্চিত করতেই মুখ্যমন্ত্রীর এমন সিদ্ধান্ত।

Ads

আরও পড়ুন, বাংলার ছাত্র ছাত্রীদের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর বিরাট ঘোষণা। স্কুলে পড়লেই পাবে।

অর্থাৎ আগের পরিষেবাগুলি ছাড়াও নতুন দুটি সুবিধা সংযোজিত হওয়ার কারণে এবারে মোট পরিষেবার সংখ্যা হল ৩৫ টি। এছাড়াও এই দুয়ারে সরকারকে আরো বিস্তৃত করার জন্য বিভিন্ন দুর্গম এলাকা যেমন সুন্দরবনের দ্বীপ সংলগ্ন অঞ্চল, দার্জিলিং , কালিম্পং ইত্যাদির পাহাড়ি এলাকায় মোবাইল ক্যাম্পের মাধ্যমে সুবিধা প্রদান করার কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

আরও পড়ুন, চাকরি না করলেও পেনশন দেবে, এই সুযোগ হাতছাড়া করবেন না।

তাই এবারে চালু করা এই দুয়ারে সরকার প্রকল্পের মাধ্যমে সুবিধা পেতে চলেছে রাজ্যের অতিরিক্ত একাংশ মানুষ। রাজ্যকে সার্বিক উন্নতির পথে আরো একধাপ এগিয়ে দিতে মুখ্যমন্ত্রীর তরফে এ এক বিশেষ উদ্যোগ।

Written by, Nabadip Saha

Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *