Finance Department – রাজ্য সরকারি কর্মী ও পেনশনারদের বড় আপডেট। এক ধাক্কায় অনেক লাভ।

পশ্চিমবঙ্গের সরকারি কর্মী ও পেনশনার দের বেতন ভাতা নিয়ে বিভিন্ন সময়ে নীতিমালা ও বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে Finance Department তথা পশ্চিমবঙ্গ অর্থদপ্তর। কর্মীদের বেতন কাঠামো তথা Pay Commission এর একাধিক অর্ডার ও Finance Department প্রকাশ করে। আর এবার রাজ্য সরকারি কর্মী ও পেনশন গ্রাহকদের পেনশন নিয়ে নয়া বিজ্ঞপ্তি জারি।

Advertisement

West Bengal Finance Department order for new pension system

শুরু হয়ে গিয়েছে উৎসবের আমেজ। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ মেতে উঠতে শুরু করেছে আনন্দে হুল্লোরে। আর এই উৎসবের আনন্দের মাঝেই রাজ্য সরকার তার রাজ্যের সরকারি কর্মচারীদের অবসরকালীন পেনশন নিয়ে ঘোষণা করল বড় এক আপডেট। এরপর থেকে অবসর গ্রহণ করার পর যে পেনশন সরকারি কর্মচারীরা লাভ করবেন তাতে আনা হবে বড়সড় পরিবর্তন, এমনটা সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার।

এতে কি লাভ হবে?

যার ফলে এরাজ্যের সরকারি কর্মীদের আশা অবসরের পর এক ধাক্কায় অনেকটা লাভবান হতে চলেছেন তারা। চলুন বিস্তারিত ভাবে দেখে নেওয়া যাক কি সিদ্ধান্ত নিল Finance Department তথা রাজ্য সরকার।
কেন্দ্রের নিয়মে চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে চালু করা হয় নতুন পেনশন স্কিম। প্রথমদিকে কেবলমাত্র কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের জন্যই চালু করা হয়েছিল এই নতুন সিস্টেম। বেশিরভাগ রাজ্যই তখন কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছিল।

Ads

এদিকে Finance Department ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার এই নিয়ম মেনে না নিলেও ঘুরপথে একই নীতিমালা অনুসরন করছে বলে করছেন একাধিক পেনশন গ্রাহক সংগঠনের কর্তারা। তবে সম্প্রতি রাজ্য সরকারের অনলাইন পেনশন নীতিমালা ও অনলাইন সার্ভিস বুক আপডেটেশন এর ফলে Finance Department ও IFMS এর লিঙ্কিং সম্ভব হয়েছে।

Advertisement

এর ফলে কি কি সুবিধা হয়েছে?

  • চাকরি শেষের আগেই পেনশন ফাইল Finance Department AG তে পাঠানো হয়।
  • পেনশন চালুর জন্য বার বার ঘোরা ঘুরি করতে হয়না।
  • চাকরী শেষের পরের মাস থেকেই পেনশন চালু হয়।
  • User ID ও Password জানলে নিজের PF, বেতন ও একাধিক তথ্য নিজেই দেখা যায়।
  • Finance Department এর অনলাইন সার্ভিস বুকে সমস্ত তথ্য সাথে সাথে আপডেট হয়।
  • সঠিক সময়ে এবং মাসের নির্দিষ্ট দিনে পেনশন পাওয়া যায়।

কেন্দ্রের পেনশন নীতি না মানার কারন

কারণ এতে লাভের তুলনায় ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা দেখেছিলেন পশ্চিমবঙ্গ সহ রাজ্যের সরকারি কর্মচারীরা। আসলে পুরনো পেনশন স্কিমে সরকারি কর্মচারীরা অবসরের সময়ে যে বেতন গ্রহণ করে থাকেন সেই বেতনের স্কেলের ভিত্তিতেই তাদের পেনশন স্থির হয়। কাজেই এই পেনশনের পরিমাণ বেশ‌ অনেকটাই হয়ে থাকে। এছাড়াও এখানে মুদ্রাস্ফীতি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে পেনশনের পরিমাণও।

Advertisement

উপরন্তু কেন্দ্রীয় সরকার যখন প্রতিবছর নতুন পে কমিশন লাগু করে তখন তার দ্বারা এই পেনশনও এক লাফে অনেকটা বৃদ্ধি পায়। কিন্তু নতুন পেনশনের নিয়মে নিজের কর্মজীবনে যে পরিমাণ অর্থ সঞ্চয় করেন কর্মচারীরা, অবসরের সময় সেটার ৬০ শতাংশ টাকা তোলা যায়। যে টাকা তুললে কর দিতে হয় না। বাকি ৪০ শতাংশ অ্যানুইটিতে বিনিয়োগ করা হয়। প্রাথমিক হিসাব অনুযায়ী, শেষ যে বেতন তুলেছিলেন সরকারি কর্মচারী, সেটার ৩৫ শতাংশের মতো পেনশন বাবদ পাওয়া যায়।

Ads
পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারি কর্মী ( West Bengal State Govt Employees)

তবে সেটা যে মিলবে, এমন কোনও নিশ্চয়তা নেই। কারণ পুরোটাই বাজারের উপর নির্ভর করে। এই অসুবিধা ভোগ না করতে চেয়েই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে গেছিলেন বিভিন্ন রাজ্যের সরকারি কর্মীরা। যদিও পরবর্তীকালে ভারতের বেশ কিছু রাজ্যের রাজ্য সরকারও অনুসরণ করে কেন্দ্রের এই পদক্ষেপকে। তবে সাম্প্রতিককালে ছত্রিশগড় রাজ্য সরকার তার রাজ্যের সরকারি কর্মচারীদের আবারো পুরনো পেনশন স্কিমের আওতায় নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সহজ কথায় আগের পেনশন নীতিতে কোনও সরকারি কর্মীর শেষ বেসিক এর নির্দিষ্ট অংক বেসিক পেনশন হিসাবে ধরা হতো। এতে নির্দিষ্ট পরিমান পেনশন পাওয়া যেত। এবং Finance Department ডিএ সহ একাধিক ভাতা ঘোষণা করলে, সেই অনুযায়ী পেনশন বাড়তো। তবে নতুন নিয়মে বলা যায় এই পেনশন কখনও বাড়তেও পারে। আবার কমতে ও পারে। কারন এই প্রকল্পের বড় একটা অংশ শেয়ার মার্কেটের উপর নির্ভরশীল। তাই পেনশন বৃদ্ধির সম্ভাবনা থাকলেও লসের ও চান্স রয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গের পেনশন গ্রাহকদের কি হবে?

Finance Department ও রাজ্য সরকার কেন্দ্রের এই নীতিমালা সম্পূর্ণ গ্রহণ করেনি। পেনশন আগে যে খাতে খাটানো হতো, এখনও সেই খাতেই কাটবে। তবে আগের পেনশন নীতিতে অনলাইন সার্ভিস গুলো ছিলো না, কিন্তু রাজ্য সরকার এই প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় ও অনলাইন করে দিয়েছে। এর ফলে সুবিধাই হবে। যদিও কেন্দ্র সরকারি কর্মীদের জন্য এই রিস্ক নেওয়া বা শেয়ার মার্কেটে টাকা খাটালে লাভই হবে। কারন তারা বছরে ২ বার দিএ ও ডিআর ঘোষণা করে। তাই শেয়ার ভ্যালু কমলেও অন্তত ৮ থেকে ১০% পেনশন ও বেতন প্রতিবছরই বৃদ্ধি পায়। কিন্তু রাজ্য সরকার ঠিকমতো ডিএ দেয় না বলে সেই বৃদ্ধিটা তেমনটা চোখে পড়ে না।

আরও পড়ুন, মাত্র 233 টাকা করে জমিয়ে পান লাখ টাকার আমানত। মধ্যবিত্তের সেরা পলিসি।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের মন্ত্রিসভায় একটি বৈঠক আয়োজিত হয়। এই বৈঠকে বিভিন্ন সরকারি কর্মচারী ও বিভিন্ন মহলের আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক শেষে আবারো রাজ্যের পুরনো পেনশন স্কিম ফিরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বলা হয় যে ২০০৪ সালের ১ জানুয়ারির পর থেকে এ রাজ্যের বিভিন্ন শক্তি উৎপাদনকারী সংস্থাগুলিতে চাকরি পাওয়া সকল কর্মীদের পুরনো পেনশন স্কিমের অধীনে আবারো ফিরিয়ে আনা হবে।

আরও পড়ুন, স্টেট ব্যাংক গ্রাহকদের জন্য বিরাট সুখবর। নতুন পরিষেবা চালু। কি কি সুবিধা পাবেন

উল্লেখ্য, কেন্দ্রের নতুন পেনশন স্কিম বেশ কিছু রাজ্যের সরকার মেনে নিলেও দেশের অনেক রাজ্যেই বিক্ষোভ চলছে এই নিয়ে। কংগ্রেস শাসিত রাজ্য গুলি চরমভাবে এখনো পর্যন্ত বিরোধিতা করছে এ ব্যাপারে কেন্দ্রের। ইতিমধ্যেই, রাজস্থান, পাঞ্জাব, হিমাচল প্রদেশ ইত্যাদি কংগ্রেস পরিচালিত রাজ্যগুলিতে আবারও চালু করা হয়েছে পুরনো পেনশন স্কিম (OPS).
Written by Nabadip Saha.

Leave a Comment

Advertisement