E Shram Card – ভোটের আগে ই শ্রম কার্ড করলেই, প্রতিমাসে পাবেন 3000 টাকা করে। ছেলে মেয়ে সবাই আবেদন করুন।

সামনেই লোক সভা ভোট। আর ভোটের আগেই সাধারণ মানুষকে খুশির খবর শোনাল কেন্দ্র সরকার। ই-শ্রম কার্ড তথা E Shram Card থাকলেই আপনি পাবেন প্রতিমাসে টাকা। লোকসভার মুখে সাধারণ মানুষের মুখে হাসি ফোঁটাতে দারুন একটি স্কিমের কথা ঘোষনা করেছে কেন্দ্র। এই বিশেষ কার্ড থাকলে ৩ হাজার টাকা করে পাওয়া যাচ্ছে। কী এই কার্ড? কারা এই কার্ডের সুবিধা নিতে পারবেন? সর্বোপরি বাড়িতে বসে অনলাইনে কীভাবে এই কার্ডের জন্য আবেদন করবেন? চলুন বিস্তারিত ভাবে জেনে নিন।

Advertisement

E Shram Card Apply Online to Get 3000 Monthly

ই-শ্রম কার্ড তথা E Shram Card এর নাম শুনেছেন? আপনার কি ই-শ্রম কার্ড রয়েছে? তাহলে কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে ৩০০০ টাকা করে পেয়ে যাবেন। ই-শ্রম কার্ডের মাধ্যমে দেওয়া হচ্ছে এই টাকা। ই-শ্রম কার্ড তথা E Shram Card করানো থাকলে মিলবে আরও অনেক সুবিধা। এবার নিশ্চয় অনেকের মনেই প্রশ্ন উঠছে ই-শ্রম কার্ড আসলে কি? চলুন আপনাদের এ বিষয়ে একটু পরিষ্কার করে বলা যাক।

  • দিন মজুরদের জন্য দুর্দান্ত প্রকল্প
  • ই-শ্রম কার্ডে কী কী সুবিধা মিলবে?
  • কারা আবেদন যোগ্য?
  • কীভাবে আবেদন করবেন?

দিন মজুরদের জন্য দুর্দান্ত প্রকল্প

দেশের সমস্ত অস্থায়ী শ্রমিকদের কার্ড ই-শ্রম কার্ড তথা E Shram Card. আমাদের দেশে এমন বহু সংখ্যক মানুষ রয়েছে, যারা অসংগঠিত বা অস্থায়ী শ্রমিক। আরো ভালো করে বললে, দিন মজুর। এই সমস্ত মানুষদের ভবিষ্যৎ সঞ্চয় বলে কিছু থাকে না। তাই এই সব শ্রমিকদের আর্থিক নিরাপত্তার কথা ভেবে মোদী সরকার ২০২১ সালের অগাস্ট মাসে ই-শ্রম কার্ডের সূচনা করেন।

Ads

দেশের ৪০ কোটি মানুষ অসংগঠিত ক্ষেত্রে কাজ করে। এর মধ্যে ২৯ কোটির বেশি মানুষের জন্য ই-শ্রম কার্ড ইস্যু করেছে কেন্দ্র। যার মধ্যে ২ কোটির বেশি মানুষকে এই কার্ডের মাধ্যমে পরিষেবা দেওয়া শুরু হয়েছে। আগামীতে এই সংখ্যা আরও বাড়বে।

Advertisement

ই-শ্রম কার্ডে কী কী সুবিধা মিলবে?

দিন মজুর, অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের আর্থিক দিক থেকে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্যই কেন্দ্র এই প্রকল্পের সূচনা করেছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে একাধিক সুবিধা পাওয়া যাবে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য, প্রতি মাসে ৩০০০ টাকা করে পেনশন।

Advertisement

ই-শ্রম কার্ড তথা E Shram Card এ নাম নতিভুক্ত থাকলে প্রধানমন্ত্রী শ্রম যোগী মানধান যোজনা এর মাধ্যমে ৬০ বছর বয়সের পর ৩০০০ টাকা করে পেনশন পাওয়া যাবে। কর্মরত অবস্থায় ১ লক্ষ টাকার স্বাস্থ্য বীমা ও ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত জীবন বীমা পাওয়া যাবে। এছাড়া ই-শ্রম কার্ড থাকলে PMAY, PMJAY, PM Kisan সহ একাধিক প্রকল্পের সুবিধা নিতে পারবে।

Ads

আপনার কাছে ই-শ্রম কার্ড থাকলে প্রতিমাসে পাবেন 3000 টাকা করে, জেনে নিন আবেদন

কারা আবেদন যোগ্য?

ই-শ্রম কার্ড তথা E Shram Card সকলের জন্য নয়। শুধু মাত্র অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের জন্য এই যোজনা আনা হয়েছে। ভারতের অসংগঠিত ক্ষেত্রে কর্মরত শ্রমিকরা ই-শ্রম কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবে। এই কার্ডে আবেদন করতে হলে বয়স হতে হবে ১৬ থেকে ৫৯ বছর। তবে যে সব ব্যাক্তি EPF বা ESI এর সুবিধা পায়, তারা এই কার্ডের সুবিধা পাবে না।

কীভাবে আবেদন করবেন?

আপনি যদি যোগ্য হয়ে থাকেন এবং এখনো ই-শ্রম কার্ড তথা E Shram Card এর জন্য আবেদন না করেন তাহলে আজই বানিয়ে ফেলুন এই কার্ড। বাড়িতে বসে স্মার্টফোন দিয়ে অনলাইনে করা যাবে আবেদন। সম্পূর্ণ অনলাইন আবেদন প্রক্রিয়াটি স্টেপ বাই স্টেপ নিম্নে উল্লেখ করা হলো-

Business Loan - ব্যবসার লোন
  • আবেদন করার জন্য ব Self Registration করার জন্য ই-শ্রম কার্ড তথা E Shram Card এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট eshram.gov.in যান এবং “Register On e-Shram” অপশনে ক্লিক করুন।
  • এবার একটি রেজিষ্টার ফর্ম খুলে যাবে। যেখানে আধার লিঙ্ক মোবাইল নম্বর, ক্যাপচা কোড দিন। তারপর EPFO ও ESIC মেম্বার স্ট্যাটাস Yes অথবা No যেটা হবে সেই বক্সে টিক করুন।
  • এখন আধার লিঙ্ক করা মোবাইল নম্বরে একটি OTP পাঠানোর জন্য Send OTP অপশনে ক্লিক করুন। দেখবেন আপনার মোবাইলে একটি OTP যাবে। এই OTP লিখুন।
  • এরপর ই-শ্রম কার্ড তথা E Shram Card এ আবেদন করার জন্য একটি ফর্ম পূরণ করুন। যেখানে নাম, ঠিকানা, বয়স, স্যালারি ইত্যাদি তথ্য সঠিক ভাবে দিন। এরপর প্রয়োজনীয় নথি আপলোড করুন। তারপর Submit বটনে ক্লিক করলে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে যাবে।

প্রতিমাসে 3000 টাকা দেবে সরকার। আজই এই কার্ড করে নিন।

উল্লেখ্য, আপনি নিজে আবেদন না করতে পারলে নিকটবর্তী CSC সেন্টারে গিয়েও আবেদন সারতে পারবেন। আবেদন করার সময় আধার কার্ড, আধার কার্ডের সঙ্গে লিঙ্ক থাকা মোবাইল নম্বর এবং ব্যাঙ্কের বই এই কয়েকটি নথি প্রয়োজন হবে।

সম্পাদক

Leave a Comment

Advertisement