মোদীজি পেনশন প্রকল্প pmsym pension scheme

পেনশন নিয়ে অনেকরই ধারণা যে সরকারি চাকরিজীবীরাই এর যোগ্য। কিন্তু সেই ধারণা এখন পাল্টাচ্ছ। চালু হয়েছে মোদীজি পেনশন প্রকল্প। কেন্দ্র সরকারের নতুন এই প্রকল্পে আপনিও পেতে পারেন আজীবন মাসিক 3000 টাকার পেনশন। আসুন, বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক এই প্রতিবেদনে।

Advertisement

নিজের পেনশন সুনিশ্চিত করতে আজই আবেদন করুন মোদীজি পেনশন প্রকল্পে।

বর্তমানে দেশ তথা সারা বিশ্বে চলছে আর্থিক মন্দা। এই পরিস্থিতিতে যদি মাসিক মাত্র 60 টাকার বিনিয়োগ করে প্রতি মাসে মোদীজি পেনশন প্রকল্প হিসেবে পাওয়া যায় 3000 টাকা, তাহলে কি অবাক করা নয় এই সুযোগ? কিভাবে নিতে পারবেন এই সুবিধা? চলুন, জেনে নেওয়া যাক।

ভারত সরকার অসংগঠিত শ্রমিকদের জন্য বার্ধক্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে মোদীজি পেনশন প্রকল্প তথা প্রধানমন্ত্রী শ্রম যোগী মান-ধন (PM-SYM) নামক একটি পেনশন প্রকল্প চালু করেছে কেন্দ্রীয় সরকারের দপ্তর।

Ads

কারা আবেদন করতে পারবেন এই মোদীজি পেনশন প্রকল্পে? (Who Can Apply in PMSYM?)
ভারতের অসংগঠিত শ্রমিকরা বেশিরভাগই গৃহভিত্তিক শ্রমিক, রাস্তার বিক্রেতা, মধ্যাহ্নভোজন শ্রমিক, হেড লোডার, ইট ভাটা শ্রমিক, মুচি, ন্যাকড়া বাছাইকারী, গৃহকর্মী, ধোপা পুরুষ, রিকশাচালক, ভূমিহীন শ্রমিক, নিজস্ব হিসাব কর্মী, কৃষি শ্রমিক, নির্মাণ শ্রমিক, বিড়ি শ্রমিক, তাঁত শ্রমিক, চামড়া শ্রমিক, অডিও-ভিজ্যুয়াল শ্রমিক এর প্রত্যেকেই আবেদন করতে পারবেন।

Advertisement

মাসিক আয় কত হলে পাওয়া যাবে মোদীজি পেনশন প্রকল্পের সুবিধা?
যাদের মাসিক আয় প্রতি মাসে 15,000/ টাকা বা তার কম এবং 18-40 বছরের প্রবেশ বয়সের অন্তর্ভুক্ত। তাদের নতুন পেনশন স্কিম (NPS), কর্মচারীদের রাজ্য বীমা কর্পোরেশন (ESIC) প্রকল্প বা কর্মচারীদের ভবিষ্যত তহবিল সংস্থা (EPFO) এর আওতায় থাকলে আবেদন করা যাবে না। উপরন্তু, তিনি একজন আয়কর দাতা হলেও আবেদন করতে পারবেন না।

Advertisement

মোদীজি পেনশন প্রকল্পে পেনশন এর বৈশিষ্ট্যঃ-
এটি একটি স্বেচ্ছাসেবী এবং অবদানমূলক পেনশন স্কিম, যার অধীনে গ্রাহক নিম্নলিখিত সুবিধাগুলি পাবেনঃ-
(i) মোদীজি পেনশন প্রকল্পে ন্যূনতম নিশ্চিত পেনশনঃ-
PM-SYM-এর অধীনে প্রতিটি গ্রাহক, 60 বছর বয়সে পৌঁছানোর পর প্রতি মাসে 3000/- টাকা ন্যূনতম নিশ্চিত পেনশন পাবেন৷

Ads

(ii) পারিবারিক পেনশনঃ-
মোদীজি পেনশন প্রকল্পে পেনশন প্রাপ্তির সময়, গ্রাহক মারা গেলে, সুবিধাভোগীর পত্নী পারিবারিক পেনশন হিসাবে সুবিধাভোগী কর্তৃক প্রাপ্ত পেনশনের 50% পাওয়ার অধিকারী হবেন। পারিবারিক পেনশন শুধুমাত্র স্ত্রীর জন্য প্রযোজ্য।

(iii) এই মোদীজি পেনশন প্রকল্পে যদি একজন উপকারভোগী নিয়মিত বিনিয়োগ করেন এবং কোনো কারণে (60 বছর বয়সের আগে) মারা যান, তবে তার/তার স্বামী/স্ত্রী নিয়মিত অবদানের অর্থ প্রদানের মাধ্যমে পরবর্তীতে স্কিমটিতে যোগদান করার এবং চালিয়ে যাওয়ার অধিকারী হবেন বা বিধান অনুযায়ী স্কিম থেকে বেরিয়ে যাবেন। প্রস্থান এবং প্রত্যাহার করা যাবে।

গ্রাহকের কতদিন বিনিয়োগ করতে হবে?
মোদীজি পেনশন প্রকল্পে গ্রাহকের বিনিয়োগ তার নিজস্ব/তার সেভিংস ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট/জন-ধন অ্যাকাউন্ট থেকে ‘অটো-ডেবিট’ সুবিধার মাধ্যমে করা হবে। PM-SYM-এ যোগদানের বয়স থেকে 60 বছর বয়স পর্যন্ত গ্রাহককে নির্ধারিত পরিমাণ অর্থ দিতে হবে।

এই মোদীজি পেনশন প্রকল্পে প্রবেশের বয়স নির্দিষ্ট মাসিক জমার ক্ষেত্রে ন্যুনতম 18 বছরে 55 টাকা থেকে শুরু করে বয়স অনুসারে তা বাড়ে। যেমনঃ- 25 বছরে 80 টাকা, 28 বছরে 100 টাকা, 35 বছরে 150 টাকা, 40 বছরে 200 টাকা হিসেবে টাকা জমা করতে হয়।

কেন্দ্রীয় সরকার দ্বারা মিলিত অবদানঃ
মোদীজি পেনশন প্রকল্প হল 50:50 ভিত্তিতে একটি স্বেচ্ছাসেবী এবং অবদানমূলক পেনশন প্রকল্প যেখানে নির্ধারিত বয়স-নির্দিষ্ট প্রিমিয়াম সুবিধাভোগী দ্বারা এবং চার্ট অনুযায়ী কেন্দ্রীয় সরকার দ্বারা মিলিত প্রিমিয়াম জমা হবে একাউন্টে।

উদাহরণ স্বরূপ, যদি একজন ব্যক্তি 29 বছর বয়সে এই স্কিমে প্রবেশ করেন, তাহলে তাকে 60 বছর বয়স পর্যন্ত প্রতি মাসে 100/- টাকা অবদান রাখতে হবে এবং একই পরিমাণ 100/- কেন্দ্রীয় সরকার দ্বারা অনুদান করা হবে।

মোদীজি পেনশন প্রকল্পে তথা PM-SYM-এর অধীনে তালিকাভুক্তি প্রক্রিয়াঃ-
গ্রাহকের একটি মোবাইল ফোন, সেভিংস ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এবং আধার নম্বর থাকতে হবে। যোগ্য গ্রাহক নিকটতম কমন সার্ভিসেস সেন্টারে যেতে পারেন (CSC eGovernance Services India Limited (CSC SPV)) এবং PM-SYM-এর জন্য আধার নম্বর এবং সেভিংস ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট/জন-ধন অ্যাকাউন্ট নম্বর স্ব-প্রত্যয়নের ভিত্তিতে নথিভুক্ত হতে পারেন।

পরে, সুবিধা প্রদান করা হবে যেখানে গ্রাহক মোদীজি পেনশন প্রকল্পের ওয়েব পোর্টালেও যেতে পারবেন বা মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করতে পারবেন এবং আধার নম্বর/ সেভিংস ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট/ জন-ধন অ্যাকাউন্ট নম্বর ব্যবহার করে স্ব-শংসাপত্রের ভিত্তিতে স্ব-নিবন্ধনও করতে পারবেন।

মোদীজি পেনশন প্রকল্পে তালিকাভুক্তি সংস্থাগুলিঃ-
তালিকাভুক্তি সমস্ত সাধারণ পরিষেবা কেন্দ্রগুলি দ্বারা পরিচালিত হবে৷ অসংগঠিত কর্মীরা তাদের আধার কার্ড এবং সেভিংস ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট পাসবুক/জনধন অ্যাকাউন্ট সহ তাদের নিকটস্থ CSC-তে যেতে পারেন এবং এই স্কিমের জন্য নিজেদের নিবন্ধিত করতে পারেন। প্রথম মাসের জন্য অবদানের পরিমাণ নগদে প্রদান করা হবে যার জন্য তাদের একটি রসিদ প্রদান করা হবে।

মোদীজি পেনশন প্রকল্পের সুবিধা কেন্দ্রঃ-
LIC-এর সমস্ত শাখা অফিস, ESIC/EPFO-এর অফিস এবং কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের সমস্ত শ্রম অফিসগুলি অসংগঠিত কর্মীদের স্কিম, এর সুবিধা এবং অনুসরণ করা পদ্ধতি সম্পর্কে তাদের নিজ নিজ কেন্দ্রে সুবিধা দেবে৷ এই বিষয়ে, কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের সমস্ত শ্রম অফিস এলআইসি, ইএসআইসি, ইপিএফও-এর সমস্ত দফতরগুলির দ্বারা করা ব্যবস্থাগুলি সহজে রেফারেন্সের জন্য নীচে দেওয়া হলঃ-

1. সমস্ত LIC, EPFO/ESIC এবং কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের সমস্ত শ্রম অফিস অসংগঠিত কর্মীদের সুবিধার্থে একটি “সুবিধা ডেস্ক” স্থাপন করতে পারে, প্রকল্পের বৈশিষ্ট্যগুলি সম্পর্কে গাইড করতে পারে এবং তাদের কাছের CSC-তে নির্দেশ দিতে পারে।
2. প্রতিটি ডেস্কে কমপক্ষে একজন কর্মী থাকতে পারে।

3. তাদের ব্যাকড্রপ থাকবে, প্রধান ফটকে স্ট্যান্ড থাকবে এবং হিন্দি ও আঞ্চলিক ভাষায় মুদ্রিত পর্যাপ্ত সংখ্যক ব্রোশিওর থাকবে যা অসংগঠিত শ্রমিকদের দেওয়া হবে।4. অসংগঠিত কর্মীরা আধার কার্ড, সেভিংস ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট/জনধন অ্যাকাউন্ট এবং মোবাইল ফোন নিয়ে এই কেন্দ্রগুলিতে যাবেন।

5. হেল্প ডেস্ক এই কর্মীদের জন্য অনসাইট উপযুক্ত বসার এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় সুবিধা থাকবে।
6. অসংগঠিত কর্মীদের তাদের নিজ নিজ কেন্দ্রে এই স্কিম সম্পর্কে সুবিধা দেওয়ার উদ্দেশ্যে অন্য কোনও ব্যবস্থা।

7. ফান্ড ম্যানেজমেন্ট:
মোদীজি পেনশন প্রকল্প তথা PM-SYM শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রক দ্বারা পরিচালিত একটি কেন্দ্রীয় সেক্টর স্কিম হবে এবং লাইফ ইন্স্যুরেন্স কর্পোরেশন অফ ইন্ডিয়া এবং CSC e-Governance Services India Limited (CSC SPV) এর মাধ্যমে বাস্তবায়িত হবে৷

LIC হবে পেনশন ফান্ড ম্যানেজার এবং পেনশন পরিশোধের জন্য দায়ী। PM-SYM পেনশন স্কিমের অধীনে সংগৃহীত পরিমাণ ভারত সরকার দ্বারা নির্দিষ্ট করা বিনিয়োগের প্যাটার্ন অনুযায়ী বিনিয়োগ করা হবে।

8. মোদীজি পেনশন প্রকল্পের প্রস্থান এবং প্রত্যাহার:
এই শ্রমিকদের কর্মসংস্থানের অসুবিধা এবং অনিয়মিত প্রকৃতি বিবেচনা করে, স্কিমের প্রস্থান বিধানগুলি নমনীয় রাখা হয়েছে। প্রস্থান বিধান নিম্নরূপঃ-

(i) যদি গ্রাহক মোদীজি পেনশন প্রকল্পে 10 বছরেরও কম সময়ের মধ্যে স্কিম থেকে প্রস্থান করেন, তবে সুবিধাভোগীর অবদানের অংশ শুধুমাত্র সঞ্চয় ব্যাঙ্কের সুদের হার সহ তাকে ফেরত দেওয়া হবে।
(ii) যদি গ্রাহক 10 বছর বা তার বেশি সময়ের পরে প্রস্থান করেন তবে চাকরির বয়সের আগে অর্থাৎ 60 বছর বয়সের আগে, তাহলে প্রকৃত অর্থে তহবিল বা সঞ্চয় ব্যাঙ্কের সুদের হার যেটি বেশি হয় তার দ্বারা সঞ্চিত সুদের সাথে অবদানের সুবিধাভোগীর অংশ।

(iii) যদি কোনো সুবিধাভোগী নিয়মিত অবদান রাখেন এবং কোনো কারণে মারা যান, তাহলে তার/তার স্বামী/স্ত্রী পরবর্তীতে নিয়মিত অবদানের অর্থ প্রদানের মাধ্যমে স্কিমটি চালিয়ে যাওয়ার অধিকারী হবেন বা প্রকৃতপক্ষে তহবিল দ্বারা অর্জিত সঞ্চিত সুদের সাথে সুবিধাভোগীর অবদান গ্রহণ করে প্রস্থান করার অধিকারী হবেন। অথবা সেভিংস ব্যাঙ্কের সুদের হার যেটা বেশি।

(iv) যদি একজন সুবিধাভোগী নিয়মিত অবদান রাখেন এবং স্থায়ীভাবে অক্ষম হয়ে পড়েন কোন কারণে চাকরির বয়সের আগে, অর্থাৎ 60 বছর, এবং এই স্কিমের অধীনে অবদান রাখতে অক্ষম হন, তাহলে তার/তার পত্নী পরবর্তীতে স্কিমটি চালিয়ে যাওয়ার অধিকারী হবেন নিয়মিত অবদানের অর্থ প্রদান বা স্কিম থেকে প্রস্থান করুন সুদ সহ সুবিধাভোগীর অবদান যা প্রকৃতপক্ষে তহবিল দ্বারা অর্জিত হয় বা সঞ্চয় ব্যাঙ্কের সুদের হার যেটি বেশি হয়।

(v) মোদীজি পেনশন প্রকল্পে গ্রাহক এবং তার স্ত্রীর মৃত্যুর পরে, সম্পূর্ণ কর্পাস তহবিলে ফেরত জমা হবে৷
(vi) NSSB-এর পরামর্শে সরকার কর্তৃক সিদ্ধান্ত নেওয়া অন্য কোনো প্রস্থান বিধান।

9. ডিফল্ট অফ কন্ট্রিবিউশনঃ-
মোদীজি পেনশন প্রকল্পে যদি একজন গ্রাহক ক্রমাগত অবদান না দিয়ে থাকেন তবে তাকে সম্পূর্ণ বকেয়া পাওনা পরিশোধ করে তার অবদান নিয়মিত করার অনুমতি দেওয়া হবে।

আবাস যোজনার টাকা ফেরত দিতে হবে, 2 তলা বাড়ি থাকলেও অনেকে টাকা পেয়েছে। তাদের লিস্ট দেখুন।

10. পেনশন পে আউট:
মোদীজি পেনশন প্রকল্পে পেনশন পে আউট কবার জন্য সুবিধাভোগী, 18-40 বছর বয়সে স্কিমে যোগদান করলে, সুবিধাভোগীকে 60 বছর বয়স পর্যন্ত অবদান রাখতে হবে। 60 বছর বয়সে পৌঁছানোর পর, গ্রাহকরা 3000/- টাকার নিশ্চিত মাসিক পেনশন পাবেন এবং পারিবারিক পেনশনের সুবিধা পাবেন, যেমনটি হতে পারে।

11. অভিযোগ নিষ্পত্তি:
স্কিমের সাথে সম্পর্কিত যে কোনও অভিযোগের সমাধান করার জন্য, গ্রাহকরা কাস্টমার কেয়ার নম্বর 1800 267 6888 এ যোগাযোগ করতে পারেন যা 24*7 ভিত্তিতে পাওয়া যাবে (15 ফেব্রুয়ারী 2019 থেকে কার্যকর হয়েছে)।

বদলে গেল বাংলা আবাস যোজনার নিয়ম, যারা এখনও টাকা পাননি তাদের এগুলো করতে হবে।

ওয়েব পোর্টাল/অ্যাপে অভিযোগ নথিভুক্ত করার সুবিধাও থাকবে।
12. সন্দেহ এবং স্পষ্টীকরণ ও CSC লোকেটার:
স্কিম সম্পর্কে কোন সন্দেহের ক্ষেত্রে, JS এবং DGLW দ্বারা প্রদত্ত স্পষ্টীকরণ চূড়ান্ত হবে। নিকটতম CSC খুঁজতে, অনুগ্রহ করে locator.csccloud.in দেখুন। এমন আরও দারুণ সব পেনশন প্রকল্প যার মাধ্যমে আপনি আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারবেন, জানতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে থাকুন। ধন্যবাদ।
Written by Mukta Barai.

Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *