New Govt Scheme(নতুন সরকারি প্রকল্প)

New Govt Scheme – সরকারের এই নতুন প্রকল্পে আবেদন করবেন কীভাবে? জানুন পদ্ধতি।

গরীব মানুষের সহায়তার্থে আবারও একটি জনহিতকর প্রকল্প (New Govt Scheme) নিয়ে এসেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। এই প্রকল্পে আবেদন করলেই মিলবে 5000 টাকা। এই আর্থিক অনুদান পাওয়ার ফলে অনেক মানুষই উপকৃত হবেন। কিন্তু কোন নতুন প্রকল্প চালু করতে চলেছে তৃণমূল সরকার? কারাই বা এই টাকা পাওয়ার জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন? কবে মিলবে এই অনুদান? এই সমস্ত কিছুর ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করা হল এই প্রতিবেদনে।

Advertisement

রাজ্যের সাধারণ মানুষের জন্য নয়, মূলত মাছ চাষ করে স্বনির্ভর (New Govt Scheme) হতে চাওয়া বেকার যুবকদেরকেই এই প্রকল্পের মাধ্যমে সহায়তা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সরকারের তরফে। রাজ্যের যেসব মানুষ, আগে থেকে মাছ চাষ করার পেশার সাথে যুক্ত আছেন বা সাবলম্বী হওয়ার জন্য এই পেশায় প্রবেশ করতে চাইছেন মূলত তাঁদের উদ্দেশ্যেই এই প্রকল্প। এখানে অনুদান বাবদ 5000 টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার।

দুই টাকার এই পুরাতন কয়েন বিক্রি করে কামান লক্ষাধিক টাকা, জানুন কীভাবে?

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, মৎস্য চাষের ক্ষেত্রে যেসব ব্যক্তি (New Govt Scheme) অন্যের পুকুর বা জলাশয় লিজ নিয়ে মাছের চারা চাষ করেন,  তাদেরকে এই প্রকল্পের মাধ্যমে সহায়তা করা হবে। অন্যদিকে, রাজ্যের মৎস্য দফতর সূত্রে খবর, আগে যারা এইভাবে মাছের চাষ করতেন তাঁদেরকেও সরকারের তরফে নির্দিষ্ট পরিমাণ মাছের চারা কিনে দেওয়া হত। সেই মাছ পুকুরে ছেড়ে বড় করে এবং পরবর্তীতে বাজারে বিক্রি করে টাকা উপার্জন করা যেত।

Ads

কিন্তু এখন মৎস্যজীবীদের মাছের চারা কিনে দেওয়া সংক্রান্ত বেশ কিছু সমস্যা নজরে এসেছে। যেমন, কিনে দেওয়া মাছের ক্ষেত্রে, অনেক সময় মরা মাছ বের হয়। পাশাপাশি, পুকুরের জলের ধরন অনুযায়ী মাছ নির্বাচন‌ করাও বেশ জরুরি।

Advertisement

এবার থেকে তাই সরকারের তরফে সরাসরি মৎস্য চাষিদের অ্যাকাউন্টে 5000 টাকা করে পাঠিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর ফলে মৎস্যজীবীরা নিজেরাই এবার যুতসই মাছের চারা কিনে পুকুরে ছেড়ে চাষ করবেন এবং সেই মাছ বড় হলে তা বাজারে বিক্রি করে ব্যবসার মাধ্যমে লাভের মুখ দেখবেন।
প্রথম পর্যায়ে রাজ্যের মোট 9000 জনকে এইভাবে 5000 টাকার আর্থিক অনুদান দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে সরকারি অনুদানের (New Govt Scheme) পুরো টাকাটাই একবারে অ্যাকাউন্টে ঢুকবে না। প্রথম ধাপে সরকারের তরফ থেকে 1000 টাকা করে দেওয়া হবে। সেই টাকায় কোন মাছের কি চারা কিনে পুকুরে ছাড়া হয়েছে, এই বিষয়ের হিসেব বা ইউটিলাইজেশন সার্টিফিকেট জমা দিতে হবে সংশ্লিষ্ট দফতরে। বাকি 4000 টাকা পরবর্তী পর্যায়ে ধাপে ধাপে মৎস্যজীবীদের অ্যাকাউন্টে ঢুকবে।

Advertisement

প্রথম পর্যায়ে, রাজ্যের উপকূলবর্তী জেলাগুলি অর্থাৎ হুগলি, হাওড়া, দুই ২৪ পরগনা ও পূর্ব মেদিনীপুরের মৎস্যজীবীদের সহায়তা করার কথা ঘোষণা করা হয়েছে সরকারের তরফে। সাথে অবশ্য বীরভূম ও বাঁকুড়া জেলার কিছু মৎস্য চাষিদের এই প্রকল্পের আওতায় আর্থিক অনুদান দেওয়া হবে জানানো হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে।

Ads

কৃষক বন্ধু প্রকল্প ও লক্ষ্মীর ভান্ডারের টাকা কবে ঢুকবে, নতুন লিস্ট দেখে নিন।

Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *