School Guidelines 2023 : স্কুলে ফাঁকিবাজি বন্ধ করতে স্কুল শিক্ষা দপ্তরের নজিরবিহীন গাইডলাইন, প্রতি সপ্তাহে স্কুল ভিজিট হবে।

গত 2 বছরের মহামারীর ভয়াবহ স্মৃতি ভুলে, অবশেষে জানুয়ারি থেকে নতুন উদ্যমে স্কুল চালু করার নতুন  নির্দেশিকা (School Guidelines) জারি করে নতুন ছন্দে রাজ্যের শিক্ষাকে গতিশীল করার চেষ্টা করছে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য স্কুল শিক্ষা দপ্তর বা West Bengal School Education Department. নতুন বছরের শুরুতে ঠিক কী গাইডলাইন আনা হয়েছে?

Advertisement

School Guidelines 2023:

প্রথমত, সরকারি স্কুলে সমস্ত ‘ফাঁকিবাজি’ রুখতে নয়া নির্দেশিকা (School Guidelines) জারি করেছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে , সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে শুরু করতে হবে প্রার্থনা। ১০ মিনিট চলবে। এরপর ১০টা ৫০ মিনিট থেকে শুরু হবে ক্লাস। প্রাথমিকে ৬ট ও মাধ্যমিকে মোট ৮ টি পর্ব থাকবে। প্রাথমিকে ৩ঃ৩০ ও মাধ্যমিকে বিকেল সাড়ে ৪ টায় শেষ হবে ক্লাস।

School Guidelines বা নির্দেশিকায় স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ১০:৪০ মিনিটের আগেই স্কুলে ঢুকতে হবে সমস্ত শিক্ষিক-শিক্ষিকাদের। ১০:৫০ এর পর স্কুলে ঢুকলে হবে লেটমার্ক। শিক্ষক এবং অশিক্ষক কর্মীরা ১১:৫ এর পর স্কুলে ঢুকলে তাদেরকেও অনুপস্থিত বলেই গণ্য করা হবে।
পাশাপাশি, ক্লাস চলাকালীন মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না শিক্ষক-শিক্ষিকারা, এটিও নির্দেশিকাতে জানানো হয়েছে।

Ads

দ্বিতীয়ত, প্রকাশিত নির্দেশিকায় (School Guidelines) পড়ুয়াদের স্বার্থকে সর্বোচ্চ স্তরে রাখার কথা বলেছে শিক্ষা পর্ষদ। শিক্ষকদের একটি ডায়েরি মেনটেন করতে বলা হয়েছে। যেখানে প্রতিটি শিক্ষককে রোজকার ক্লাসের রেকর্ড, কোথায় কোন পড়ুয়া পিছিয়ে রয়েছে বা কীভাবে তারা এগিয়ে চলেছে, পড়ানোর পদ্ধতি, শিক্ষা প্রদানের পরিকল্পনা, কত নম্বর অধ্যায়ের কতটুকু পড়ানো হয়েছে, অর্থাৎ পড়ুয়াদের যাবতীয় তথ্য লিখে রাখতে হবে বিশদে। এবং শিক্ষা অধিকারিকদের স্কুল ভিজিটের সময়ে এটা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন।

Advertisement

পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি, শ্রেণী ভেদে কার কত টাকা বাড়লো।

তবে এখানেই শেষ নয়, এই ডায়েরিটি স্কুলের প্রধান শিক্ষককে দিয়ে সই করাতে হবে। পরবর্তীতে প্রধান শিক্ষককে এই ডায়েরি সংক্রান্ত একটি বিস্তারিত রিপোর্ট পাঠাতে হবে বোর্ডকে।
এছাড়া প্রতিমাসে নিয়ম করে স্কুল পরিদর্শক ও পাশাপাশি বাধ্যতামূলক করা হয়েছে প্রতিদিন মিড ডে মিল সেকশন থেকে বিদ্যালয় পরিদর্শন। এর ফলে বজায় থাকবে খাবারের মানও।

Advertisement

অবস্থা বেগতিক, স্কুল ছুটি ঘোষণা, নিয়ম করে অনলাইন ক্লাসের নির্দেশ, শিক্ষকদের কোনও ছুটি নেই।

নতুন শিক্ষাবর্ষ থেকে পর্ষদ শিক্ষকদের নিয়ে বেশ কড়া, তা School Guidelines নির্দেশিকা থেকেই মালুম হচ্ছে। গাইডলাইনে জানানো হয়েছে, শিক্ষকদের পালনীয় দিন গুলিতে বাধ্যতামূলক ভাবে আসতে হবে স্কুলে। অর্থাৎ বাড়ি বসে ছুটির মেজাজে বিশেষ দিনগুলি পালনের সুযোগ হারালেন শিক্ষকরা। আপনাদের মন্তব্য নিচে কমেন্ট করে আলোচনায় অংশগ্রহণ করতে পারেন।

Ads

আর মাত্র 3 দিন, বদলে যাচ্ছে ব্যাংকের এই নিয়ম, না জানলে বিপদ নিশ্চিত।

সম্পাদক

9 thoughts on “School Guidelines 2023 : স্কুলে ফাঁকিবাজি বন্ধ করতে স্কুল শিক্ষা দপ্তরের নজিরবিহীন গাইডলাইন, প্রতি সপ্তাহে স্কুল ভিজিট হবে।”

  1. তবে যে সব টিচার রা TMC ইউনিয়ন র সাথে যুক্ত তাদের শুধুমাত্র discount

    Reply
  2. এটাতো আগেকার নিয়ম, বর্তমানে এটা লাগু হলে শিক্ষার মান যথেষ্ট উন্নত হবে

    Reply
  3. খুব ভালো পদক্ষেপ। কিন্তু কিছু প্রশ্ন-1.ছুটি ও পালনীয় এক সঙ্গে কি ভাবে সম্ভব? 2.প্রধান শিক্ষক এর ক্লাস ডাইরি তে কার স্বাক্ষর থাকবে? 3.অনিয়মিত ছাত্র ছাত্রীদের অগ্রগতি কিভাবে হবে?

    Reply
  4. শিক্ষকদের উপর সমাজের এক অংশ এত বিরক্ত কেন? ব্যাঙ্কে বা অন্যান্য সরকারি দপ্তরে “পরে আসুন” এর কোন সমাধান করতে পেরেছে কি সরকার? পেরেছে কি সরকারি হাসপাতালের বেহাল দশা ফেরাতে? আদালতে “তারিখ পে তারিখ” তো সিনেমার ডায়লগ হয়ে গিয়েছে। বিশ্বময় শিক্ষা ব্যবস্থার “বেস্ট প্র্যাক্টস” না মেনে শিক্ষকদের “উচিত শিক্ষা” দিয়েই সরকার চায় সমাজকে “শিক্ষিত” করতে। সন্দেহ নেই, এইজন্যেই এই বাংলায় শিক্ষার এই দশা। অশিক্ষিতরা শিক্ষকদের পদে পদে শিক্ষা দিতে চাইলে একদিন এই সমাজই উচিত শিক্ষা পাবে।

    Reply
  5. আগে ছাত্র অনুপাতে শিক্ষক কতজন আছে সেই বিষয়ে দেখতে হবে। অনেক ইস্কুলে পড়াবার শিক্ষক নাই। সরকারের নিয়ম ঠিকই আছে। কিন্তু পড়াশুনা সেই মত হয় না। আমার মনে হয় শিক্ষক সমস্যা মেটানোর জন‍্য চুক্তি ভিত্তিক নিয়োগ করুক ; তবে ভাতা 20000 টাকা করা উচিত। শুধু ইস্কুল ছাড়াও এই সমস্যা সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আছে যেমন ভোকেশনাল ; পলিটেকনিকেও শিক্ষক এর অভাবে পঠনপাঠন ঠিকমত হয় না।

    Reply
  6. এই বিধিগুলির কোনোটাই নতুন নয়। বেশ কয়েক বছর ধরে হয়ে আসছে। শুধু আধিকারিকদের পরিদর্শন প্রতি সপ্তাহে ছিল না। তবে সেটাকেও স্বাগত জানাতে হবে। তবে এই খবরটা ঢাক – ঢোল পিটিয়ে নতুন করে এতো প্রচারের উদ্যেশ্য বোঝা গেলো না।সম্ভবতঃ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

    Reply

Leave a Comment

Advertisement