পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষকদের ডিএ ও ইনক্রিমেন্ট বন্ধ। বকেয়া বেতন নিয়ে বিকাশ ভবন থেকে আপডেট।

ইনক্রিমেন্ট বন্ধ শিক্ষকদের, বাকি 42% ডিএ! চিন্তায় শিক্ষকমহল

সম্প্রতি ইনক্রিমেন্ট বন্ধ হওয়ায় সমস্যায় পড়েছেন কয়েক হাজার শিক্ষক। এই সিদ্ধান্তের বিপরীতে ” অল পোস্ট গ্রাজুয়েট টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন” এর পক্ষ থেকে শিক্ষকদের তরফ থেকে সংগঠিত দাবিপত্র জমা পড়েছে বিকাশ ভবনে। রাজ্যের করায় কয়েক হাজার শিক্ষক শিক্ষিকারা ইনক্রিমেন্ট তালিকা থেকে বাদ পড়েছে। এর কারণ হিসেবে জানা যাচ্ছে, বিশেষ কারণবশত নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে B.ED প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত না হওয়া।

Advertisement

এই কারণেই , শিক্ষকমন্ডলী গত সোমবার স্কুল শিক্ষা কমিশনার ও শিক্ষাসচিবকে এই আর্জি জানিয়ে দাবিসনদ পেশ করেছেন যে অন্তত 2023 সাল পর্যন্ত তাদের ইনক্রিমেন্ট ব্যবস্থা যাতে সচল থাকে। ইতিমধ্যে, অনেক শিক্ষক- শিক্ষিকা দের ডিএ বাকি রয়ে গেছে প্রায় 42% , যার জন্য বেতনও তারা সঠিক পরিমাণে পাচ্ছেন না। সরকারের এই উদাসীনতা যথেষ্ট সমালোচনা বাড়িয়ে দিচ্ছে শিক্ষামহলে।

কেন বন্ধ হলো লাস্ট ইনক্রিমেন্ট?

পর্যাপ্ত বিএড কলেজ নেই এই রাজ্যে, সেই সঙ্গে ভাক্যান্সি নেই ডেপুটেড টিচারদের ও। এর ফলে স্কুল সার্ভিস এবং মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন দ্বারা নিযুক্ত হয়েও বিএড অপ্রশিক্ষিত টিচার্স রা 5 বছরের মধ্যে বিএড ডিগ্রী কমপ্লিট করতে পারেননি।

Ads

অধিকাংশ স্কুলেই দুইয়ের বেশি অপ্রশিক্ষিত শিক্ষক শিক্ষিকা নিযুক্ত ছিলেন। কিন্তু যেকোনো স্কুল থেকে সর্বাধিক দুইজন শিক্ষক শিক্ষিকা বিএড শিক্ষার জন্য অনুমতি পেয়ে থাকেন। ডিগ্রী সম্পূর্ণ হওয়ার পর তারা বিদ্যালয়ে ফিরে এলে পরবর্তী দুজন শিক্ষিকা বিএড এর জন্য অনুমতি পেয়ে থাকেন।

Advertisement

NCTE এর নির্দেশ অনুসারে, 2015 সাল থেকে বিএড শিক্ষণের মেয়াদ বেড়ে হয়েছে 1 থেকে 2 বছর। এর ফলে বিভিন্ন বিএড কলেজ গুলি পরিকাঠামোগত সমস্যায় পড়ে। যার ফলে আসন সংখ্যা কমে প্রায় অর্ধেক হয়ে যায়।
উচ্চমাধ্যমিকে যেসব শিক্ষকমন্ডলী অ্যাডিশনাল পদে নিযুক্ত থেকে তিন চার বছর পূর্ণ করেননি, তারা বিএড সের অনুমতি পেতেন না।

Advertisement
Primary TET 2014

বেশিরভাগ কলেজেই বিশেষ কিছু বিষয় অন্তর্ভুক্ত ছিল না যেমন ফিলোসফি, এডুকেশন, নিউট্রিশন এবং কমার্স সহ আরও কিছু বিষয়। এর ফলে উক্ত সাবজেক্ট গুলিতে স্পেশালাইজড শিক্ষিকারা সুযোগ পাননি।
স্নাতক ও স্নাতকোত্তর স্তরে অনেক শিক্ষক শিক্ষিকা এর প্রাপ্ত নম্বর 50% এর কম থাকায় টা তাদের প্রশিক্ষণে বাধা হয়ে দাড়ায়।

Ads

G.O NO 269 ( 15.03.2013) অনুযায়ী, শুধুমাত্র যেসব শিক্ষিকা এবং শিক্ষকরা উচ্চ প্রাথমিক বিভাগে যুক্ত ছিলেন, তারা distance এবং open learning mode বিএড প্রশিক্ষণের সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু তবুও প্রচুর শিক্ষকমন্ডলী (মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক বিভাগ) ODL এর সুবিধা পাওয়ার থেকে বঞ্চিত হয়েছিলেন।

আরও পড়ুন, পশ্চিমবঙ্গের বকেয়া DA নিয়ে মিলল বড় খবর, মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা।

প্রচুর শিক্ষক শিক্ষিকার 2023 পর্যন্ত ইনক্রিমেন্ট বন্ধ থাকা নিয়ে সরকারের তরফ থেকে কোনো নোটিশ আসেনি। লস্ট ইনক্রিমেন্টও রিস্টোর করার জন্য কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। উল্লেখ্যভাবে, G.O.No 118-SE/S/10M-29/16 Dated 06.02.2018 অনুযায়ী, 2006 থেকে 2009 সালের ব্যবধানে এবং G. O No 806-SE/S/10M – 29 / 16 (Pt. III) Dated 08.07.2019 অনুযায়ী ২০০২ সাল থেকে ২০০৫ সালের ব্যবধানে যেসব শিক্ষক শিক্ষিকা নিযুক্ত হয়েছিলেন তারা 2015 সাল অবধি তাদের সকল লস্ট ইনক্রিমেন্ট গুলো ফিরে পেয়েছিলেন।

আরও পড়ুন, আর ফ্রি রইলো না, ATM Card মেশিনে ঢোকালেই চার্জ দিতে হবে, কোন ব্যাংকে কত টাকা লাগবে জেনে নিন।

এই বিষয়ে অ্যাসোসিয়েশন এর সম্পাদক চন্দন ঘরাই এর বক্তব্য, “স্কুলশিক্ষা দপ্তরের পক্ষ থেকে ২০২৩ পর্যন্ত অবিলম্বে যাদের ইনক্রিমেন্ট বন্ধ আছে তাদের জন্য রিস্টোর ইনক্রিমেন্টের পুনরায় একটি নোটিফিকেশন প্রকাশ করা হোক ও লাস্ট ইনক্রিমেন্ট সংক্রান্ত সমস্ত জেলার সকল টিচারদের পেন্ডিং এরিয়ারগুলি ২০২৩ সালের মধ্যে পেমেন্টের জন্য যথোপযুক্ত উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। রাজ্য সরকারের সঠিক পরিকল্পনার অভাব ও উদাসীনতায় প্রায় ১৫ হাজার শিক্ষক শিক্ষিকা আজ লস্ট ইনক্রিমেন্ট সমস্যার কারণে ভুক্তভোগী।

সুখবর বাংলা

Leave a Comment

Advertisement